ফরেক্সের দুষ্টচক্র

প্রথম পর্ব : ফরেক্স মার্কেটে আপনার ফতুর হওয়ার সময় চলে এসেছে

স্বপ্নিল: স্কুলে থাকতে শিখতে হয়েছিল, দারিদ্রের দুষ্টচক্র কাকে বলে।  চাইলেও কেন গরিব মানুষগুলো তাদের দারিদ্র থেকে বের হতে পারে না সহজে, তা জেনে খারাপ লেগেছিল। কে জানত, এইরকম একটা দুষ্টচক্র অপেক্ষা করছে ফরেক্স ট্রেডারদের জন্যও।

দারিদ্রের দুষ্টচক্রের মত ফরেক্স মার্কেটেরও একটি দুষ্টচক্র রয়েছে। ফতুর হওয়ার পূর্বশর্ত হল, এই চক্রের মধ্যে আপনাকে একবার না একবার প্রবেশ করতে হবে। এরপর আর কস্ট করতে হবে না, বাকিটা মার্কেটই করে দিবে।

তো ফরেক্সের এই দুষ্টচক্রটা কি?

ফরেক্সের দুষ্টচক্র

আর এই দুষ্টচক্রের ফলশ্রুতিতেই লস বাড়তে বাড়তে একসময় ট্রেডাররা ফতুর হয়ে যায়।

আর যদি আমি বেচে যাই?

মাঝে মাঝে ভাগ্য ভাল থাকলে, বড় ধরনের মার্কেট মুভমেন্টে লস কাভারও হয়ে যায়, অর্থাত,  দুষ্টচক্র থেকে বের হওয়া যায়। কিন্তু, সাথে সাথেই পড়তে হয় আরেক দুষ্টচক্রে, যার নাম দিলাম লোভের দুষ্টচক্র। আর তা হচ্ছেঃ

লোভের দুষ্টচক্র

এই লোভের দুষ্টচক্রে একবার পা দিয়েছেন তো, ফরেক্সের দুষ্টচক্রে আপনাকে পড়তেই হবে, আর ফতুর হতেই হবে। অনেকটা নেশার মত।

কিন্তু, কথা হচ্ছে এমন ভুল কি শুধু নবীন ট্রেডাররাই করে, প্রবীনরা করে না?

আমার দেখামতে, অধিকাংশ ট্রেডার জানেই না, কিভাবে ট্রেড করতে হবে, কোন ট্রেডে কত রিস্ক নিতে হবে, কত স্টপ লস সেট করতে হবে. এরাই সবচেয়ে বেশি ভুল করে ও শুরুতেই ফরেক্সের দুস্টচক্রে পরে।

এবার আসি, একটু শিক্ষিত ট্রেডারদের বেলায়, যারা ফরেক্স স্কুল কমবেশি কমপ্লিট করেছেন। তারা মোটামুটি জানেন কতখানি রিস্ক নিতে হবে ট্রেডে ও মানি ম্যানেজমেন্ট সম্পর্কেও জানেন। এ ধরনের ট্রেডাররা শুরুতে অল্প রিস্ক নিয়েই ট্রেড শুরু করেন। কিন্তু, কয়েকটি ট্রেড শেষে বা দীর্ঘদিন ট্রেড শেষে নিচের কোন না কোন পরিস্থিতি ফেস করেন:

– টানা কয়েকটি ট্রেডে লাভ করে আত্মবিশ্বাসী হয়ে যান এবং ভাবেন, এত অল্প লট দিয়ে ট্রেড করা বোকামী।

– অথবা কিছু ট্রেডে লাভ করেন, কিছু ট্রেডে লস করে দেখেন, ব্যালেন্স তো কমে বাড়ে, বাড়ে কমে, কিন্তু তেমন বেশি তো চেঞ্জ হচ্ছে না। ফলে তারা বিরক্ত হয়ে যান ও মানি ম্যানেজমেন্ট ভুলে অথবা তোয়াক্কা না করে বেশি লটে ট্রেড করা শুরু করেন।

– অথবা টানা কয়েকটি ট্রেডে হেরে মানসিকভাবে ভেঙ্গে পড়েন। অনেক সময় এর ফলে ব্যালেন্স বেশ খানিকটা কমে যায় বা আগের অনেকগুলো ট্রেডের লাভ, এই লসের কারণে হারিয়ে যায়। তখন তিনি মনে করেন, এতদিন ট্রেড করে তাহলে কি লাভ হল। তাই, ধৈর্যহারা হয়ে আবার বেশি লটে ট্রেড করা শুরু করেন।

– অনেকে নিয়মিত মার্কেটের সাথে নিজেকে আপটু ডেট রাখেন ও তখন ভালো লাভও করেন। কিন্তু, এরপর ব্যস্ততার কারণে ট্রেড থেকে বিরত থাকেন ও আবার যখন ফিরে আসেন, আগের মত গুরুত্ব দিয়ে আর ট্রেড করেন না। ফলে লসই বেশি করেন ও তাড়াতাড়িই ধৈর্যহারা হন।

– অনেক সময় মাত্র এক বা দুই পিপসের জন্য টেক প্রফিট মিস হয়ে, প্রফিটের ট্রেড উল্টো লসে ক্লোজ হয়। সত্যি বলতে, এটা মেনে নেয়া খুব কম মানুষের পক্ষেই সম্ভব। ফলে. সেই লস কাভারের জন্য দ্বিগুন রিস্ক নিয়ে ট্রেড করতে যান ও লোভের দুস্টচক্রে পা দেন।

– আবার, মার্কেট যখন প্রত্যাশা অনুযায়ী মুভ করে (যেমনটা গত সপ্তাহে করেছে), কিন্তু একটা সময় পরে প্রত্যাশার বিপরীতে মুভ করে, তখন অনেক ট্রেডার হতবাক হয়ে যান। তারা মনে করেন, এতদিন মার্কেট ঠিকভাবে মুভ করল , এখন করছে না কেন? আবার কবে মুভ করবে? নাকি আমার ট্রেডিং স্ট্রাটেজি ভুল? এটা অনেক ট্রেডারকেই হতাশ করে ফেলে।

– অনেক সময় অন্যের দোষেও ট্রেডাররা ভুল করেন। আপনি মার্কেটে কিছুদিন একটিভ থাকুন, আপনাকে নিয়ে শুরু হবে কতিপয় মানুষের টানাটানি। তারা আপনাকে তাদের ফেসবুক, স্কাইপে অ্যাড করার চেস্টা কবে, তারপর শুরু করবে তাদের সাফল্যের কাহিনী শোনানো। অমুক ট্রেডিং সিস্টেম ফলো করে তো আজকে অমুক প্রফিট  করলাম। ধুর মিয়া, কি পদ্ধতিতে ট্রেড করেন, আমি এমনভাবে ট্রেড করি, এটা বেস্ট। অমুক ভাই ফরেক্স শেখায়, সেই রকম লাভ করতে পারবেন। এর পর চলে সিগন্যাল বিক্রি, রোবট বিক্রি, পছন্দের ব্রোকারে জয়েন করার চেস্টা নানাকিছু। ফোরামে নিজের ট্রেডিং সিস্টেম শেয়ার করা বা রোবট/ইন্ডিকেটর ফ্রিতে শেয়ার করতে বললেই তখন শুরু হয় নানা টালবাহানা।  এর ফলে অনেক ট্রেডার আগে সফলভাবে ট্রেড করতে থাকলেও বিভ্রান্ত হয়ে যান এবং নিচের পরিস্থিতির শিকার হনঃ

– আগের কারণে বা স্বভাবগত কারণেই তাই অনেক ট্রেডার সবসময় এক্সপেরিমেন্ট নিয়ে ব্যস্ত থাকেন। এই এক্সপেরিমেন্ট মানি ম্যানেজমেন্ট নিয়েও চলতে থাকে। কোন ট্রেডে রিস্ক নেন কম, কোনটাতে অনেক বেশি। আর যখনই বড় লস করে ফেলেন, আবার ফরেক্সের দুষ্টচক্রে ফিরে যান।

 

– ব্রোকারের দোষটাও কম না. অনেক সময় আপনি চাইলেও রিকোটস দিয়ে ব্রোকার আপনাকে লাভ করতে দিবে না, যদি আপনি স্ক্যাম ব্রোকারের সাথে ট্রেড করে থাকেন।  এর ফলে একেবারে ফতুর হয়ে যাবেন না, কিন্তু ধৈর্যহারা হয়ে যাবেন ঠিকই বা ভাল ট্রেড করার সুযোগ মিস করে হতাশায় নিমজ্জিত হবেন। আর তখনই ভুল করবেন ও বড় লট দিয়ে ট্রেড করতে যেয়ে ফরেক্সের দুষ্টচক্রে পা দিবেন। আর ব্রোকার যদি নিজেই বড় লটে ট্রেড ওপেন করে ফতুর করে দেয়, তাহলে তো কথাই নেই।

এদের মধ্যে, সবচেয়ে বেশি খারাপ লাগে তাদের জন্য, যারা দীর্ঘদিন সবকিছু মেনে চলেন, লস হলেও মানি ম্যানেজমেন্ট মেনে চলতে চেস্টা করেন কিন্তু টানা কয়েকটি লসের কারনে একসময় না একসময়, ঠিকই তারা ধৈর্যহারা হন এবং সেই বেশি লট দিয়ে ট্রেড ওপেন করার ঐতিহাসিক ভুল করেন।

সারমর্মঃ

তাহলে, আমরা কি দেখলাম? সফলভাবে (!) ফরেক্সের ফতুর হওয়ার প্রধান শর্ত হচ্ছে শুধু একবার লোভ করে ট্রেডে বেশি রিস্ক নিতে যাওয়া। তাতে আপনি যদি ব্যর্থ হোন, তাহলে আপনি পড়বেন ফরেক্সের দুস্টচক্রে, যেটা থেকে বের হওয়া প্রায় অসম্ভব। আর সফল হলেও রক্ষা নেই, এর ফলে আপনি পড়বেন লোভের দুস্টচক্রের পাল্লায়, যা আপনাকে ফরেক্সের দুস্টচক্রের দিকে টেনে নিয়ে যাবেই যাবে। তাই, একবার লোভ করলেই বা ধৈর্যহারা হলেই বিপদ। আপনাকে ধ্বংসের জন্য এটাই যথেস্ট।

উপায়ঃ

তাহলে কি উপায়? কিভাবে ট্রেড করতে হবে? কিভাবে লস হলে তা মোকাবেলা করতে হবে?

এসব প্রশ্নের উত্তর নিয়ে চিন্তা করুন। মনে রাখবেন, সবাই সব কিছুতে সফল হবে, এমন কোন কথা নেই। ফরেক্স মার্কেটে টিকে থাকতে হলে, উপরের ভুলগুলো থেকে আপনাকে দুরে থাকতেই হবে। আপনি দীর্ঘদিন চেস্টা করেও যদি এই ভুলগুলো থেকে নিজেকে বিরত রাখতে না পারেন (এটা কিন্তু মোটেই সহজ কোন কাজ নয়), তাহলে বুঝতে হবে, ফরেক্স ট্রেডিং থেকে আপনি অন্য কিছুতে ভালো করবেন। আমি জানি, এই কঠিন কথাটি অনেক তেতো শোনায় এবং অনেকেই হয়ত বলবেন, আপনি কে আমি ট্রেড করব না করব সেটা বলে দেবার। চেস্টা করলে তো মানুষ সবই পারে। আমি কোন ফরেক্স এক্সপার্ট না এবং আমি মনে করি, সেটাই করুন, যেটা আপনি সবচেয়ে ভালো পারেন। চেষ্টা করলে যদি মানুষ সবই পারে, তাহলে আশা করি, এই ভুলগুলো থেকে আপনিও বিরত থাকতে পারবেন। কি, পারবেন না? অবশ্যই পারবেন।

1 COMMENT

Please Leave a Reply