NFP

সাধারণত শুক্রবার সন্ধায় NFP নিউজ পাবলিশ হয়। নতুন নতুন ট্রেডারদের বেশিরভাগ একাউন্টই জিরো হয় এই সময়ে। নিউজ সম্পর্কে ধারণা না থাকা , এটার গুরুত্ব না বুঝা এবং নিউজ ইফেক্ট কি হতে পারে সেটা না জানার কারণে মানি ম্যানেজমেন্টকে বৃদ্ধাংগুলি দেখানো স্টপলস ছাড়া অনেক একাউন্ট এ দিন লালবাত্তি জ্বলে।
আসলে NFP এর আগে মার্কেট রেঞ্জি থাকে। তাই স্কাল্পাররা স্টপলস ছাড়া স্কাল্পিং করতে গিয়ে হঠাৎ একটি দুটি ট্রেডে আটকে যায়। পরে দেখা যায় যে ট্রেডে আটকে গেছে সেটাতেই একাউন্ট জিরো হয়ে গেছে।
নতুন অনেকেই NFP সম্পর্কে জানেনা
NFP non-farm payroll

Definition of ‘Non-farm Payroll’

A statistic researched, recorded and reported by the U.S. Bureau of Labor Statistics intended to represent the total number of paid U.S. workers of any business, excluding the following employees:

– general government employees
– private household employees
– employees of nonprofit organizations that provide assistance to individuals
– farm employees

This monthly report also includes estimates on the average work week and the average weekly earnings of all non-farm employees.
আরো জানতে ক্লিক করুন
http://www.dailyfx.com/forex/education/trading_tips/post_of_the_day/2012/11/01/LEARN_FOREX_-_What_is_NFP.html

 

মুলত প্রতি মাসের প্রথম শুক্রবার Bureau of Labor Statistics কর্তৃক পূর্ববর্তী মাসের টোটাল ননফার্ম প্রতিষ্ঠানগুলার বেকারত্ব, নতুন চাকুরী, পে-রোল সহ টোটাল ডাটা পাবলিশ করে।

(স্বপ্নিল)

নামে ননফার্ম হলেও শুধু কৃষি নয়, সাথে সরকারি কর্মচারী, পরিবারের ব্যক্তিগত কর্মচারী আর অলাভজনক প্রতিস্থানগুলোর কর্মচারীদের বাদ দিয়ে মার্কিন শ্রম পরিসংখ্যান ব্যুরো প্রতি মাসের প্রথম শুক্রবার প্রকাশ করে পূর্ববর্তী মাসে যুক্তরাষ্ট্রে চাকরির সংখ্যা কি আগের থেকে বাড়ল না কমল। শুধু তাই না, বাড়লে কয়টা বাড়ল আর কমলেও কয়টা কমলেও সে সংখ্যাটাও। যেহেতু, কৃষি খাতকে বাদ দিয়েই এই হিসাবটা করা হয়, তাই এর নাম হয়েছে ননফার্ম পেরোল।

কি আছে এই রিপোর্টে যে তা প্রবলভাবে ফরেক্স মার্কেটকে নাড়া দেয়ার ক্ষমতা রাখে? শুধু ফরেক্স বললে ভুল হবে, স্টক মার্কেট, বন্ড মার্কেটেও বড় ধরনের পরিবর্তন ঘটে ইউএস ননফার্ম পেরোল বা এনএফপি এর কারনে। প্রথমত, দেশটির নাম আমেরিকা। ঋণ করতে অথবা যুদ্ধ বাঁধাতে ওস্তাদ হলেও এখনো বিশ্বের এক নম্বর অর্থনৈতিক শক্তি দেশটি। দ্রুত বর্ধনশীল বিশ্বের দ্বিতীয় অর্থনীতি চীনেরও যুক্তরাষ্ট্রকে ছাড়িয়ে যেতে লাগবে অনেক বছর যদি তারা বর্তমান প্রবিদ্ধি ধরে রাখতে পারে (ইতিমধ্যেই কমতে শুরু করেছে চীনের প্রবিদ্ধি). সবচেয়ে আশাবাদী ব্যক্তিও আগামী দশকের আগে চীন যুক্তরাষ্ট্রকে টপকাতে পারবে এমন আশা করেন না।

আর সামরিক শক্তির দিক থেকে তো আমেরিকার ধারে কাছেও কেউ নেই। বলা হয়, আমেরিকা বাদে বিশ্বের শীর্ষ ২০ পরাশক্তির সম্মিলিত সমরশক্তিও এক আমেরিকার সমান নয়। মহাকাশ শাসনেও প্রায় একক আধিপত্য আমেরিকার। গায়ের জোরে ডলারকে বিশ্বের রিজার্ভ কারেন্সিও বানিয়েছে দেশটি।

খরচের দিক থেকেও আমেরিকানদের তারিফ করতে হয়, এখানেও এরা এক নম্বর। আর তাই সারা বিশ্বের বড় বড় সকল কোম্পানির শাখা আছে আমেরিকায়। বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় রপ্তানি বাজার হচ্ছে আমেরিকায়, এমনকি আমেরিকার সবচেয়ে বড় প্রতিদ্বন্দ্বী চীনেরও সবচেয়ে বড় রপ্তানির বাজার আমেরিকায়।

এখন সেই আমেরিকার অর্থনীতি ঠিকঠাক মত চলছে কিনা সেদিকে নজর রাখা দরকার না? আমাকে আপনাকে কষ্ট না করলেও হবে, এই কাজটি করার জন্য অসংখ্য প্রতিষ্ঠান আছে। বড় বড় কোম্পানিগুলো পাশাপাশি ফরেক্স, ষ্টক ট্রেডাররাও চোখ রাখে আমেরিকার সামগ্রিক অর্থনীতির উপরে। আমেরিকার অর্থনীতি ভালো থাকলে শেয়ার বাজারে সুবাতাস বয় (ডিএসি এর সাথে আবার তুলনা করতে যাবেন না), আর খারাপ হলে ঘটে এর উল্টোটা। প্রভাব পড়ে ফরেক্স মার্কেটেও।

এনএফপি গুরুত্বপূর্ণ এই কারনে যে, আমেরিকার চাকরির বাজারের চালচিত্র মোটামুটি বোঝা যায় এই রিপোর্টের কারনে। চাকরীর সংখ্যা বাড়ল না কমল সেটার পাশাপাশি আরও বেশ কিছু বিষয়ের উল্লেখ থাকে এনএফপি রিপোর্টে, যেমনঃ

  • মোট কর্মক্ষম জনশক্তির কত শতাংশ বেকার
  • কোন কোন সেক্টরে চাকরি বেড়েছে বা কমেছে
  • ঘণ্টাপ্রতি গড় বেতন
  • পূর্ববর্তী মাসের এনএফপি রিপোর্টের সংশোধন

যেভাবে তৈরি করা হয় এনএফপি রিপোর্টঃ

খুব স্বচ্ছ এবং যতটা সম্ভব নিখুঁতভাবে তৈরি করা হয় এনএফপি রিপোর্ট। প্রথমে, সরকারী বেসরকারি উভয় প্রতিষ্ঠানের কর্মচারীদের তথ্যই যোগাড় করে মার্কিন শ্রম পরিসংখ্যান ব্যুরো। যেহেতু, প্রায় ২৫ কোটি জনসংখ্যা আছে আমারিকায় এবং এই জনসংখ্যার একটি বড় অংশই কর্মক্ষম, তাই আলাদাভাবে প্রত্যেকের উপর জরিপ চালান সম্ভব না প্রতি মাসে। আর তাই, মার্কিন পরিসংখ্যান ব্যুরো বেছে নিয়েছে স্যাম্পল পদ্ধতি (দৈবচয়ন). প্রতি মাসে ১ লক্ষ ৪১ হাজার ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের উপর জরিপ চালায় সংস্থাটি আর সরকারি বিভিন্ন এজেন্সি মিলিয়ে প্রতিনিধিত্ব করে প্রায় আরও ৪ লক্ষ ৮৬ হাজার কর্মক্ষেত্র। চিঠি, ইমেইল, ইন্টারনেট অথবা অত্যাধুনিক ইডিআই প্রযুক্তিতে জরিপে অংশগ্রহণকারী প্রতিষ্ঠানগুলো তাদের কর্মচারীদের তথ্য পাঠায় পরিসংখ্যান ব্যুরোর কাছে।

এনএফপি রিপোর্টের প্রকাশের বেলায় প্রথম ঝামেলাটা বাঁধে এখানে। ছোটো বড় বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান তাদের সাধ্য অনুযায়ী তথ্য পাঠাতে গিয়ে প্রতি মাসে অনেকেই দেরি করে বা সেই তথ্য পেতে দেরি হয় পরিসংখ্যান ব্যুরোর। যেহেতু, এনএফপি রিপোর্ট প্রকাশের তারিখ নির্ধারিত, প্রতি মাসের প্রথম সোমবার, তাই হাতে তা তথ্য আসে তা দিয়েই রিপোর্ট প্রকাশ করে দেয় পরিসংখ্যান ব্যুরো। এই রিপোর্টটি পরে দুইবার সংশোধন করা হয়। প্রথমবার, পরিবর্তী মাসের এনএফপি রিপোর্ট প্রকাশের সময়, দ্বিতীয়বার আরও এক মাস পরে। এছাড়াও পরবর্তীতে ছোটখাটো কিছু পরিবর্তন আনা হলেও সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ চলতি এনএফপি রিপোর্ট ও আগের এনএফপি রিপোর্টের সংশোধন।

খুবই ঝামেলার কাজ, তাই না? অথচ দেখুন, এই ঝামেলার কাজটিই কিনা প্রতি মাসে সুন্দরভাবে করে যাচ্ছে মার্কিন পরিসংখ্যান ব্যুরো।

এনএফপি এর প্রভাবঃ

যেহেতু, প্রতি মাসের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ নিউজগুলোর একটি হচ্ছে এনএফপি, তাই অনেক ট্রেডারই অপেক্ষা করে বসে থাকে এনএফপি ট্রেড করার জন্য। প্রায় প্রতিটি এনএফপি এর আগেই একই ঘটনা ঘটে। এনএফপির আগে আগে ট্রেডাররা ট্রেড করতে চান না বলে মার্কেটে মুভমেন্ট বা ভোলাটিলিটি কমে যায়, এনএফপি এর ঠিক আগেই শুরু হয় বড় বড় স্পাইক। সেকেন্ডে মার্কেট পরিবর্তিত হয় ৫-১০ পিপস করে।

হটাত করে পাগল হয়ে যাবে মার্কেট। হয় টানা পড়া/বাড়া শুরু করবে অথবা একলাফে ১৫-২০ পিপস করে কমবে/বাড়বে। হারিকেন শুরুর পূর্ব মুহূর্তে সাগর যেমন স্থির থাকে, হটাত করে শুরু হয় বড় বড় ঢেউ এর নাচন, ফরেক্স মার্কেটের অবস্থাও হয় তেমনি। আর এই ঢেউ এ ভেসে গিয়ে সলিল সমাধি ঘটে পিপস সংগ্রহের অভিযানে বের হওয়া মানি মানেজমেন্ট না জানা অসংখ্য ট্রেডারের ট্রেডিং অ্যাকাউন্টটির।

 

কিভাবে এনএফপি ট্রেড করা যায়ঃ

প্রতি মাসের প্রথম শুক্রবার বাংলাদেশ সময় বিকেল ৬:৩০ টায় (এপ্রিল-অক্টোবর) বা ৭:৩০ টায় (অক্টোবর-এপ্রিল) প্রকাশিত হয় এনএফপি নিউজ। রিপোর্টের প্রত্যাশিত ফলাফল (forecast) আগেই ট্রেডাররা জানতে পারে। যদি আসল ফলাফল (actual) এর মান প্রত্যাশার থেকে বেশি হয়, তবে তা ডলারের জন্য ভালো হিসেবে ধরা হয়, এবং সেই কারণে ডলার শক্তিশালী হবার সুযোগ থাকে। অপরদিকে যদি আসল ফলাফল (actual) এর মান প্রত্যাশার থেকে কম হয়, তবে ডলারের জন্য খুব একটা ভালো নয়, অর্থাৎ খারাপ হিসেবে ধরা হয়, এবং এর পরিপ্রেক্ষিতে ডলার দুর্বল হতে পারে। আপনি যদি EURUSD বা GBPUSD ট্রেড করেন, এবং NFP প্রত্যাশার থেকে ভালো আসে তবে এই ২টি পেয়ারের প্রাইস কমতে পারে। আবার প্রত্যাশার থেকে খারাপ আসলে বাড়তে পারে। তবে কি পরিমাণ কমতে বা বাড়তে পারে তা নির্ভর করে প্রত্যাশার থেকে আসল ফলাফলের পার্থক্য কত বেশি বা কম। যদিও কিছু কিছু সময় এই নিউজ মার্কেটে প্রভাব ফেলে না, তবে বেশিরভাগ এন.এফ.পি নিউজে মার্কেটে ব্যাপক মুভমেন্ট হয় এবং ট্রেডারদের কাছে এই নিউজ রিপোর্টটি মার্কেট মুভার হিসেবে পরিচিত।

 

উদাহরণঃ ধরা যাক, গত মাসে ফলাফল ছিল ৯৬০০০ (96K) এবং এই মাসে আশা করা হচ্ছে ১১৪০০০ (114K). নিউজের ফলাফল যদি ১১৪০০০ (114K) থেকে বেশী আসে, তবে তা ডলারের জন্য পজিটিভ হবে। আর ১১৪০০০ (114K) এর কম হলে তা ডলারের জন্য নেগেটিভ হবে। এনএফপি নিউজের ফলাফল এক্সপেক্টেড থেকে প্রতি ৭০০০০ (70K) পরিবর্তনের জন্য ৭০ পিপসের মত মুভমেন্ট হতে পারে।
 

সংবিধিবদ্ধ সতর্কীকরণঃ অত্যাধিক ঝুঁকি নিয়ে নিউজ ট্রেড করা অসংখ্য ট্রেডিং অ্যাকাউন্টের অকাল মৃত্যুর অন্যতম কারণ।

 

 

2 COMMENTS

Please Leave a Reply